Thu. Apr 25th, 2024

দিন নিখোঁজ থাকার পর তৃণমূল নেতার ক্ষত-বিক্ষত মৃতদেহ উদ্ধার।

1 min read

আজকেরবার্তা, তপন, ২০ জুনঃ তৃণমূল নেতা ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ালো দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার তপন ব্লকের কাদমা এলাকায়। পুলিশ সূত্রে খবর মৃত তৃণমূল নেতার নাম আদেশ বর্মন। বয়স আনুমানিক পঞ্চান্ন বছর। শুক্রবার থেকে নিখোঁজ থাকার পর রবিবার রাতে তৃণমূল নেতার বাড়ির সংলগ্ন পাটক্ষেত থেকে উদ্ধার হয় স্থানীয় তৃণমূল নেতার ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ।

স্থানীয় সূত্রের খবর, তৃণমূল নেতা আদেশ বর্মন স্থানীয় এলাকার বুথ সভাপতি ছিলেন। শুক্রবার থেকেই নিখোঁজ ছিলেন তিনি। পরিবারের তরফ থেকে বিষয়টি নজরে আসার পর আশেপাশে খোঁজাখুঁজি শুরু করে পরিবারের সদস্যসহ পরিজনেরা। কিন্তু 24 ঘন্টা পার হয়ে যাওয়ার পরও মৃত তৃণমূল নেতা আদেশ বর্মনের খোঁজ না মেলায় শনিবার তপন থানায় তৃণমূল নেতা নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করে তৃণমূল নেতার পরিবার। অভিযোগ দায়ের হওয়ার পরও চলতে থাকে খোঁজাখুঁজি। দুই দিন পার হয়ে যাওয়ার পরও কোন খোঁজ না মেলায় দুশ্চিন্তায় পড়ে পরিবার। এরপর রবিবার রাতে তৃণমূল নেতার বাড়ির সংলগ্ন পাটক্ষেত থেকে উদ্ধার হয় আদেশ বর্মনের ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ। ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। দু দিন নিখোঁজ থাকার পর ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ উদ্ধার হওয়ায় প্রাথমিকভবে আদেশ বর্মন কে খুন করা হয়েছে বলে অনুমান করছে তার পরিবারের সদস্যরা। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় তপন থানার পুলিশ। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে তা সোমবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে পুলিশ মর্গে পাঠিয়েছে। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে তপন থানার পুলিশ।
অপরদিকে 2 দিন নিখোঁজ থাকার পর তৃণমূল নেতার ক্ষত-বিক্ষত মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনায় সন্দেহ দানা বাধতে শুরু করেছে। কে বা কাহারা জড়িত এই খুনের সঙ্গে তা নিয়ে দ্বন্দ্বে পুলিশ থেকে পরিবার সকলে। তৃণমূল নেতার খুনের পেছনে কে রয়েছে তা নিয়ে উঠছে নানান প্রশ্ন। বিরোধী দলের ষড়যন্ত্র নাকি অন্য কিছু। উঠছে নানান রকম প্রশ্ন।

অপরদিকে এ বিষয়ে বিজেপি জেলা সভাপতি স্বরূপ চৌধুরী জানান, তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব কারণে মৃত্যু হয়েছে তপনের তৃণমূল নেতার। এর পিছনে বিজেপির কোনো রকম হাত নেই। তৃণমূলের অন্তঃকলহ জেরেই এমন ঘটনা বলে অনুমান করছেন বিজেপি জেলা সভাপতি।

You may have missed

Copyright © All rights reserved. | Newsphere by AF themes.