Thu. Feb 29th, 2024

মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে ঘরে ফিরলেন কাশ্মীরে কর্মরত বাংলার শ্রমিকেরা, খুশির ছায়া বাংলায়

1 min read

আজকের বার্তা; বুনিয়াদপুর, ৫ নভেম্বর: অবশেষে মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে ঘরে ফেরানো সম্ভব হল কাশ্মীরে কর্মরত অবস্থায় থাকা বাংলার শ্রমিকদের। সোমবার বিকেলে ১৩৩জন শ্রমিক ফিরে আসে কলকাতায়। এদের মধ্যে ১১২জন শ্রমিকই দক্ষিণ দিনাজপুরের। জন্মু তাওয়াই এক্সপ্রেসে চেপে তারা কলকাতায় ফিরে আসে। এবিষয়ে রাজ্যের এডিজি দক্ষিণবঙ্গ সঞ্জয় সিং ও সিআইডি আধিকারিক অনুপ জয়সওয়ালকে মুখ্যমন্ত্রী শ্রীনগর পাঠিয়েছিলেন কাশ্মীরের প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করে সব ব্যবস্থা পাকা করার জন্য। অবশেষে সোমবারে শ্রমিকদের নিয়ে কলকাতায় ফিরে আসেন তারা।

উল্লেখ্য, বেশ কিছুদিন ধরেই উপত্যকা উত্তপ্ত একের পর এক জঙ্গি হামলায়। গত আগস্টে ৩৭০ ধারা বিলোপ হয়ে গেলেও ২২২ বার সংঘর্ষ বিরতি লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটে উপত্যকায়। কিন্তু ২৯শে অক্টোবর কাশ্মীরের কুলগ্রামে মুর্শিদাবাদের ৫জন বাঙালি শ্রমিককে নৃশংসভাবে হত্যার ঘটনা ৩৭০ ধারা রদের পরে কাশ্মীরে হত্যাকাণ্ডের সব থেকে বড় ঘটনা। ফলে থমথমে পরিস্থিতি গোটা কাশ্মীর জুড়ে। প্রশ্ন উঠছে কাশ্মীরের সুরক্ষা নিয়ে। কিন্তু এরপরেও সেখানে কর্মরত অবস্থায় ছিল পশ্চিমবঙ্গের বহু শ্রমিক এবং আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছিল তাদের পরিবার পরিজনেরা। জানা গেছে, মঙ্গলবার ভোর রাতে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় ফিরে আসে কাশ্মীরে কাজ করতে যাওয়া ১১২জন শ্রমিক। বুনিয়াদপুরের তিনটি বাসে করে কলকাতা থেকে জেলায় ফিরে আসেন তারা। শ্রমিকদের বেশীরভাগই মূলত গঙ্গারামপুর, বংশীহারী ও কুশমণ্ডি ব্লকের। এরপরে প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের বুনিয়াদপুর থেকে গ্রামে পাঠানোর জন্য অন্যান্য বাসের ব্যবস্থা করা হয়। শ্রমিকদের স্বাগত জানানোর জন্য ভোররাতেই বুনিয়াদপুরে গিয়ে হাজির ছিলেন মহকুমা শাসক দেবাঞ্জন রায়, জেলা তৃণমূল সভাপতি অর্পিতা ঘোষ সহ শাসক দলের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

প্রসঙ্গত, কাশ্মীরের কুলগ্রামে পশ্চিমবঙ্গের ৫জন শ্রমিককে গুলি করে হত্যা করে জঙ্গিরা। ঘটনার পর থেকেই ফের আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে ভূস্বর্গে। ফলে একপ্রকার স্তব্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে কাশ্মীরের জনজীবন বলে বিরোধীদের অভিযোগ। ফলে সেখানে থাকা পশ্চিমবঙ্গের শ্রমিকদের মধ্যে আতঙ্ক বাড়তে শুরু করে বলে জানা যায়। এমতাবস্থায় পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার তাঁর নিজস্ব উদ্যোগে সেই ভীত সন্ত্রস্ত শ্রমিকদের ফিরিয়ে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করে বাংলায়। অবশেষে সোমবার বিকেলে ১৩৩জন শ্রমিক ফিরে আসে কলকাতায়। তাদের সঙ্গে অসমের ৫জন শ্রমিকও কলকাতায় ফিরে আসে। জন্মু তাওয়াই এক্সপ্রেসে চেপে কলকাতা স্টেশনে এসে পৌঁছায় তারা।

জানা গেছে, রাজ্যের এডিজি দক্ষিণবঙ্গ সঞ্জয় সিং ও সিআইডি আধিকারিক অনুপ জয়সওয়ালকে মুখ্যমন্ত্রী শ্রীনগর পাঠিয়েছিলেন সেই রাজ্যের প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ রেখে সব ব্যবস্থা পাকা করার জন্য। অবশেষে সোমবার ১৩৩জন শ্রমিককে নিয়ে কলকাতায় ফিরে আসেন তারা। স্টেশনে তাদেরকে স্বাগত জানাতে উপস্থিত ছিলেন কলকাতার মেয়র তথা পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। শুধু রাজ্যে ফিরিয়ে নিয়ে আসাই নয়; তাদের নিজ নিজ এলাকায় ফেরানোর পুরো বন্দোবস্ত করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী বলে জানা যায়। তাদের ঘরে ফেরার জন্য বেশ কয়েকটি বাসের ব্যবস্থাও করেছিলেন তিনি। দক্ষিণ দিনাজপুরের ১১২জন শ্রমিক সেই তিনটি বাসে করেই জেলায় ফিরে আসে। শ্রমিকদের মধ্যে ১০৫জন ছিলেন কুশমণ্ডির, ৫জন বংশীহারীর এবং ২জন গঙ্গারামপুর ব্লকের। পাশাপাশি কোচবিহার, জলপাইগুড়ি, মালদা ও বীরভূমের শ্রমিকরাও কলকাতা স্টেশন থেকে বাসে করে ফিরে যায় তাদের নিজ নিজ গ্রামে।

এবিষয়ে কাশ্মীরে কর্মরত এক শ্রমিক জানান, কাশ্মীরে তিনি শ্রমিকের কাজের উদ্দেশ্যে যান। কিন্তু বর্তমানে ভয়ানক আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে কাশ্মীরে। ফলে ফৌজিরা তাদেরকে সেখান থেকে চলে আসতে বলে। পরে জন্মু তাওয়াই এক্সপ্রেসে চেপে তারা কলকাতায় ফিরে আসে। এখন বাড়ি ফিরে এসে খুব ভালো লাগছে বলে জানান তিনি।

এবিষয়ে মহকুমা শাসক দেবাঞ্জন রায় জানান, পশ্চিমবঙ্গের যে সমস্ত শ্রমিকরা জন্মু-কাশ্মীরে কাজের জন্য গিয়েছিল তাদের সুরক্ষিত অবস্থায় দক্ষিণ দিনাজপুরে ফিরিয়ে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। মোট ১১২জন শ্রমিক এদিন জেলায় ফিরে আসে। এরপরে প্রাথমিক কিছু সাহায্য দিয়ে শ্রমিকদের নিজ নিজ গ্রামে নিয়ে যাওয়া হবে। এরপরে তারা ব্লকে যোগাযোগ করলে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

এবিষয়ে তৃণমূল জেলা সভাপতি অর্পিতা ঘোষ জানান, কাশ্মীরে বর্তমানে সুরক্ষা ব্যবস্থা তেমন নেই। প্রতিদিনই প্রায় সেখানে জঙ্গি হামলা হচ্ছে। গতকালকেও সেখানে বোম্ব ব্লাস্টিং হয়ে মানুষ মারা গিয়েছে। এই অবস্থায় শ্রমিকদের সেখানে থাকা অসম্ভব ছিল। তাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি শ্রমিকদের ফিরিয়ে নিয়ে আসার উদ্যোগ গ্রহন করেন এবং তাদের সুরক্ষিত অবস্থায় গ্রামে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থাও করেন। শ্রমিকদেরকে ভালোভাবে গ্রামে ফিরিয়ে দিয়ে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও করে দিবেন মুখ্যমন্ত্রী বলে জানান তিনি।

You may have missed

Copyright © All rights reserved. | Newsphere by AF themes.